বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৫ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
আজ ঐতিহাসিক ২২ ফেব্রুয়ারি

১৯৬৯ সালের আজকের এই দিনে তীব্র আন্দোলনের মুখে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার ও শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তি লাভ করেন।

৬৯’-এর গণঅভ্যুত্থান
এর ঐতিহাসিক দিনগুলি

– ৪ জানুয়ারিঃ ৬ দফার ভিত্তিতে ছাত্রলীগের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয় এবং ১১ দফা দাবি পেশ করে ছাত্রসমাজ।

– ১১ দফা দাবিঃ ছাত্রসমাজের বিভিন্ন দাবিদাওয়ার মধ্যে প্রধান দাবী ছিল আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ রাজবন্দিদের মুক্তি। এর ভিত্তিতেই সংগঠিত হয় ৬৯’-এর গণঅভ্যুত্থান

– ১৭-১৯ জানুয়ারিঃ ছাত্রনেতারা দেশব্যাপী সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের ডাক দিলে ১৪৪ ধারা জারি করে গভর্নর মোনেম খান। ডাকসু ভিপি তোফায়েল আহমেদের ডাকে ছাত্ররা রাজপথে নেমে আসে। পুলিশ কাদানে গ্যাস টিয়ার শেল মেরে প্রতিহত করার চেষ্টা করে

– ২০ জানুয়ারিঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় ছাত্রসভা ও প্রতিবাদ মিছিলের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে নিহত হয় ছাত্রনেতা আমানুল্লাহ মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান (আসাদ)

– ২১, ২২, ২৩ জানুয়ারিঃ শহীদ আসাদের জন্য শোক পালন করা হয়

– ২৪ জানুয়ারিঃ সান্ধ্য আইন ভঙ্গ করে মিছিল বের করে সর্বস্তরের জনগণ। মিছিলে পুলিশের গুলিবর্ষণে কিশোর মতিউর রহমান ও রুস্তম শহীদ হন। প্রতিবাদে সংগ্রামী জনতা সেদিন সচিবালয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। বিক্ষুব্ধ জনগণ তৎকালীন দৈনিক পাকিস্তান ও পাকিস্তান অবজারভার অফিসে আগুন লাগিয়ে দেয়। ঢাকার পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

– ১৫ ফেব্রুয়ারিঃ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্ত সার্জেন্ট জহুরুল হক বন্দি অবস্থায় ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে নিহত হন

– ১৮ ফেব্রুয়ারিঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহা নিহত হন। সান্ধ্য আইন উপেক্ষা করে রাজপথে নেমে আসে জনগণ

– ২২ ফেব্রুয়ারিঃ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয় আইয়ুব খানের সরকার। শেখ মুজিবুর রহমানসহ ৩৪ আসামীকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়

– ২৩ ফেব্রুয়ারিঃ শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ

#বঙ্গবন্ধু #আগরতলাষড়যন্ত্রমামলা #আন্দোলন #MassUpsurgeDay
#Bangladesh

আমাদের ফেইসবুক পেইজ