বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩২ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

বিপর্যস্ত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, নেপথ্যে শাহবাজ শরিফ
রিপোর্টারের নাম / ৬১ বার
আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

 

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)। এর পর পরই ক্ষমতার মসনদে বসতে যাচ্ছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরিফের ভাই ও পার্লামেন্টে বিরোধীদলীয় নেতা শাহবাজ শরিফ।

বুধবার এ কথা জানিয়েছেন দেশটির অন্যতম বিরোধী দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে বিরোধীদের আনা অনাস্থা প্রস্তাবের বিষয়ে আলোচনা হবে বৃহস্পতিবার।

বিরোধীদলীয় নেতা শাহবাজ খানের তোলা অনাস্থা প্রস্তাবের বিষয়ে বিতর্ক শুরু হবে বলে জানিয়েছেন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের স্পিকার কাসিম সুরি।

গতকাল ইমরানের জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে আজ রাতে নির্ধারিত করা হয়েছে। এমনটি জানিয়েছেন ফেডারেল তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে দেশ শাসনে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে গত ৮ মার্চ পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেয় বিরোধী দলগুলো। এর মধ্যে রয়েছে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) মতো বড় দলগুলো।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব উত্থাপনের অনুমতি চেয়ে সোমবার সন্ধ্যায় বিরোধী দলের নেতা শাহবাজ শরিফ পার্লামেন্টের স্পিকারের কাছে আবেদন করেন।

ডেপুটি স্পিকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘প্রস্তাবটি হাউসে উপস্থাপন করার অনুমতি দিন, যেহেতু রেজুলিউশনটি ইতোমধ্যে এজেন্ডায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।’

এদিকে ইমরান-বিরোধ আন্দোলনে যোগ দেয়ায় মুত্তাহিদা কোয়ামি মুভমেন্ট- পাকিস্তানের (এমকিউএম-পি) প্রধানকে ধন্যবাদ জানান বিলাওয়াল ভুট্টো।

ইমরান খানের সরকার গঠনে অন্যতম প্রধান শরিক দল ছিল এই এমকিউএম-পি পার্টি।

এরই মধ্যে ইমরান খানের দল পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে। তিনি এখন আর দেশটির কার্যকর প্রধানমন্ত্রী নন বলেও দাবি করেন বিলাওয়াল ভুট্টো।

তবে এমকিউএম-পির এমন বিমাতাসুলভ আচরণকে বৈদেশিক ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

জাতীয় পরিষদের স্পিকারকে সঙ্গে নিয়ে পার্লামেন্টের নিরাপত্তাবিষয়ক কমিটি ও জাতীয় নিরাপত্তা কমিটিকে বৈঠকে ডেকেছেন আজ ইমরান খান।

বৃহস্পতিবারের মধ্যে দেশটির পার্লামেন্টে ইমরানের প্রধানমন্ত্রিত্বের বৈধতা বিষয়ে বিতর্ক নিষ্পত্তির দাবিও জানান পিপিপি চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো।

কে এই শাহবাজ শরিফ

২০১৮ সালের আগস্ট থেকে দেশটির জাতীয় পরিষদে বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্ব পালন করে আসছেন শাহবাজ শরিফ।

তিনি পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন তিনবার। এখন পর্যন্ত এই প্রদেশে সবচেয়ে বেশি সময় মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন শাহবাজ।

দেশটির অন্যতম বিরোধী দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নেওয়াজ-এর (পিএমএল-এন) প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে রয়েছেন শাহবাজ নেওয়াজ। তিনি পাঞ্জাবের প্রাদেশিক পরিষদে সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন ১৯৮৮ সালে।

তিনি পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন ১৯৯৭ সালে।

১৯৯৯ সালে সেনা অভ্যুত্থানে সরকার উৎখাতের পর পরিবারসহ সৌদি আরবে নির্বাসনে যান শাহবাজ শরিফ। ২০০৭ সালে দেশে ফিরে আসেন তিনি।

দেশটির জাতীয় নির্বাচনে নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন জয়লাভ করলে তার ভাই শাহবাজ শরিফ দ্বিতীয়বারের মতো পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন।

দুর্নীতির অভিযোগে নেওয়াজ শরিফ প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর দলটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করা হয় তার ভাই শাহবাজ শরিফকে।

পাকিস্তানের সংসদের নিয়ম অনুযায়ী এমন অনাস্থা প্রস্তাব গৃহীত হতে অন্তত ২০ শতাংশ সংসদ সদস্যের অনুমতির প্রয়োজন হয়। এর অর্থ অনাস্থা ভোট আয়োজনের প্রস্তাব গৃহীত হওয়ার জন্য ৬৮ পার্লামেন্ট সদস্যের সম্মতি দরকার হবে।

কিন্তু ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনতে এর চেয়ে অনেক বেশি সদস্য সায় দেন। সব মিলিয়ে এ প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেন ১৬১ জন। এরপর প্রস্তাবটি গৃহীত হওয়ার ঘোষণা দেন স্পিকার।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে শাহবাজ শরিফ বলেন, ‘ইসলামিক রিপাবলিক অফ পাকিস্তানের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৯৫-এর ১ ধারা অনুযায়ী, এই সংসদ ঘোষণা দিচ্ছে যে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান নিয়াজির ওপর সংসদের কোনো আস্থা নেই। ফলে ৪ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তাকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে।’

পার্লামেন্টে ভোটের হিসাব-নিকাশ

নিম্নকক্ষে ৩৪২ আসনের মধ্যে বিরোধীদের দখলে আছে ১৬৩টি। বাকি ১৭৯ আসনের মধ্যে ইমরানের দলের আছে ১৫৫টি এবং চার জোটসঙ্গীর ২০টি।

অনাস্থা প্রস্তাবে টিকে থাকতে হলে ইমরান খানকে অন্তত ১৭২ সদস্যের সমর্থন পেতে হবে। এর মধ্যে তিন জোটসঙ্গী মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট পাকিস্তান (এমকিউএম-পি), পাকিস্তান মুসলিম লিগ-কায়েদ (পিএমএল-কিউ) ও বালুচিস্তান আওয়ামী পার্টি (বিএপি) বিরোধী শিবিরে যোগ দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে।

সঙ্গীরা বিপক্ষে গেলে এমনিতেই ইমরানের প্রধানমন্ত্রী থাকা হবে না। তার ওপর নিজ দলের ২০ জনের বেশি এমপি তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। এ ছাড়া নিম্নকক্ষে ইমরানের আসন আছে ১৫৫টি। ক্ষমতায় টিকে থাকতে তার আরও ১৭ ভোট প্রয়োজন।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ