বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:০৬ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

বোচা বাবু খুনের দায় থেকে বাঁচতে টিপুকে খুন: র‌্যাব
রিপোর্টারের নাম / ৮২ বার
আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

 

মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম টিপুর সহযোগী রিজভি হাসান ওরফে বোচা বাবুকে তাকে হত্যা করা হয়েছিল যুবলীগ নেতা রিয়াজুল হক খান মিল্কী হত্যাকাণ্ডসহ আধিপত্য বিস্তারের জেরে। আর সেই হত্যা মামলা থেকে বাঁচতে এবার হত্যা করা হয়েছে টিপুকে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

এরই মধ্যে এই হত্যার অন্যতম পরিকল্পনাকারীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তারা হলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক ওরফে কানা ফারুক, আবু সালেহ শিকদার ওরফে শুটার সালেহ, মো. নাছির উদ্দিন ওরফে কিলার নাছির, মো. মোরশেদুল আলম ওরফে কাইল্লা পলাশ।

ঘটনার পর থেকে ধারাবাহিক অভিযানে রাজধানীর মুগদা, শাহজাহানপুর ও মিরপুর এলাকা থেকে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-৩ এর সদস্যরা তাদের গ্রেপ্তার করেন।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক জানান, দীর্ঘদিন ধরে টিপু ও তার হত্যার পরিকল্পনাকারীদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। মতিঝিল এলাকার চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, স্কুল-কলেজের ভর্তি বাণিজ্য, বাজার নিয়ন্ত্রণ, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব-সংঘাত অনেক পুরানো বিষয়।

তিনি জানান, দ্বন্দ্ব-সংঘাতের পরম্পরায় ২০১৩ সালের ৩০ জুলাই গুলশান শপার্স ওয়ার্ল্ডের সামনে মিল্কী হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। মিল্কী হত্যার তিন বছরের মধ্যে একই এলাকার বাসিন্দা রিজভি হাসান ওরফে বোচা বাবু হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, বোচা বাবু হত্যা মামলায় ওমর ফারুক, নাসির ও সালেহ চার্জশিটভুক্ত আসামি আর কাইল্লা পলাশ মামলারটির একজন সাক্ষী। এই মামলার বিচারকাজ প্রভাবিত করতে একই মামলার আরেক আসামি মুসার সঙ্গে ওমর ফারুক, নাসির, সালেহ ও কাইল্লা পলাশ যুক্ত হয়ে টিপু হত্যার পরিকল্পনা করা হয়।

তিনি জানান, মিল্কী হত্যাকাণ্ডের পর এই হত্যায় টিপুর সম্পৃক্ততা প্রমাণে নানাভাবে চেষ্টা করে আসছিল ওমর ফারুক, পলাশসহ একটি পক্ষ। কিন্তু এরপরও জাহিদুল ইসলাম টিপু মামলা হতে অব্যাহতি পান। পরবর্তীতে গ্রেপ্তার ওমর ফারুক ও অন্য সহযোগীরা স্বার্থগত দ্বন্দের কারণে টিপুর অন্যতম সহযোগী রিজভী হাসান ওরফে বোচা বাবুকে ২০১৬ সালে হত্যা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এই ঘটনায় বাবুর বাবা ও টিপুর ঘনিষ্ট বন্ধু আবুল কালাম আজাদ একটি মামলা করেন। বর্তমানে দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের মাধ্যমে মামলার বিচারকাজ চলছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক জানান, আসামিদের ধারণা প্রতিপক্ষ টিপুর কারণেই রিজভী হাসান হত্যাকাণ্ডের মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে স্থানান্তরিত হয়েছে। ইতোমধ্যে মামলার বাদী রিজভী হাসান বাবুর বাবা আবুল কালামের সঙ্গে গ্রেপ্তার ওমর ফারুক ও তার সহযোগীরা ৫০ লাখ টাকায় দফারফা করার চেষ্টা করেন।

তিনি জানান, কিন্তু জাহিদুল ইসলাম টিপুর কারণে কালাম মিমাংসায় আসেননি বলে গ্রেপ্তার ব্যক্তির জানান। তারা এক পর্যায়ে কালামকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেন, কিন্তু জাহিদুল ইসলাম টিপুর সঙ্গে চলাচল করার কারণে তা সম্ভব হয়নি। একসময় তারা চিন্তা করেন টিপুকে হত্যা করা হলে বাদী কালাম একা মামলাটি সঠিকভাবে পরিচালনা করতে পারবেন না। এরই পরিপ্রেক্ষিতে প্রায় ৩ মাস আগে সাক্ষ্য শেষে আদালত চত্ত্বর এলাকায় টিপু হত্যাকাণ্ডের প্রাথমিক আলোচনা করেন তারা।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ